শিরোনাম:
চট্টগ্রামে এক গৃহবধূর ও এক বৃদ্ধার আত্মহত্যা বোয়ালমারীতে অবৈধভাবে সরকারি জমিতে পাকা স্থাপনা বানানোর অভিযোগ আলফাডাঙ্গায় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যকে বিকৃতি করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন সুনামগঞ্জে সুরমা ইউপি চেয়ারম্যান আমির হোসেন রেজা বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনে সংবাদ সম্মেলনে করেছেন ১১জন ইউপি সদস্যরা বোয়ালমারীতে কোটা আন্দোলনের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন পিকনিকের ট্রলারে হামলা, লুটপাট। প্রাণ বাচাতে নদীতে লাফ, মরদেহ উদ্ধার।। বরিশালে বাপ ছেলের সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি সার্ভে ও রেজিস্ট্রেশন করতে আসা ছোট নৌযান মালিকরা গোপালগঞ্জে বশেমুরবিপ্রবিতে নিহতের ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও মিছিল! গোপালগঞ্জে হেলমেট বিহীন চালকদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থার নির্দেশ- জেলা প্রশাসক পঞ্চগড়ে ২০ লাখ টাকার অবৈধ চা জব্দ করেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ড

নওগাঁয় কারারক্ষী স্বামীর বিরুদ্ধে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ

সুবীর দাস স্টাফ রিপোর্টার
  • আপডেটের সময় : সোমবার, ১ আগস্ট, ২০২২
স্বামীর বিরুদ্ধে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ
17.2kভিজিটর

নওগাঁয় আতিকুর রহমান নামে এক কারারক্ষী স্বামীর বিরুদ্ধে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ করেছেন তার স্ত্রী শাপলা বেগম। নির্যাতনের অভিযোগে নওগাঁ আদালতে করা “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন” আইনে মামলা প্রভাবিত করা ও বিচার চাইতে গিয়ে কারাগারের জেলারের কুপ্রস্তাবের শিকার হয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন ওই নারী। সোমবার দুপুরে নওগাঁ জেলা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে তিনি এ সংবাদ সম্মেলন করেন। এ ছাড়া বগুড়া কারাগারে কর্মরত অবস্থায় স্বামীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন করতে গিয়ে তৎকালীন জেলার শরিফুল ইসলামের কাছে যৌন হয়রানির স্বীকার হন বলেও অভিযোগ করেন ওই গৃহবধূ। কারারক্ষী আতিকুর রহমান বর্তমানে রাজশাহী কারাগারে কর্মরত।

আর জেলার শরিফুল ইসলাম নওগাঁ কারাগারে জেলার হিসেবে কর্মরত। সংবাদ সম্মেলনে শাপলা বেগম অভিযোগ করেন, ২০১০ সালে পারিবারিক ভাবে নওগাঁ সদর উপজেলার চুনিয়াগাড়ী গ্রামের মোজাফফর হোসেনের ছেলে আতিকুর রহমানের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। বিয়ের এক বছর পর বাড়ি করার নামে তাঁর প্রবাসী বাবা সাইদুর রহমানের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা যৌতুক নেন আতিকুর। পরে গাইবান্ধায় কর্মরত অবস্থায় কারারক্ষী আতিকুর তার ওপরে একাধিকবার নির্যাতন করেন। নাটোর ও বগুড়ায় থাকা অবস্থায় ঘুমের মধ্যে তাঁকে বালিশচাপা দিয়ে হত্যাচেষ্টা করেন তিনি। শাপলা বেগম আরও বলেন, নির্যাতনের কারণ খুঁজতে গিয়ে তিনি জানতে পারেন, তার স্বামী বিয়ের কথা গোপন করে একাধিক মেয়ের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক করেন।

এর প্রতিবাদ করলে তার ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে যায়। ২০২০ সালের ২৪ আগস্ট গ্রামের বাড়ি চুনিয়াগাড়ীতে নিয়ে তাকে সাদা কাগজে সই করার জন্য চাপ দেন আতিকুর। কিন্তু সই করতে রাজি না হওয়ায় স্বজনদের সহযোগিতায় আতিকুর তাকে মারধর করেন। পরে চণ্ডিপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) তৎকালীন চেয়ারম্যান বেদারুল ইসলাম তাকে উদ্ধার করেন। লিখিত বক্তব্যে শাপলা বেগম বলেন, পরকীয়া ও নির্যাতনের অভিযোগে স্বামীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ২০২০ সালের ২৬ আগস্ট বগুড়া কারাগারের তৎকালীন জেলার শরিফুল ইসলামের কাছে যান তিনি। কিন্তু জেলার তাকে আলাদা একটি কক্ষে নিয়ে অশ্লীল ছবি দেখিয়ে কুপ্রস্তাব দেন।

জেলারের এমন আচরণের জন্য তিনি স্বরাষ্ট্র সচিব, সুরক্ষা সেবা বিভাগ সহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন। কিন্তু স্বামী এবং জেলারের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। শাপলা বেগম বলেন, ২০২০ সালের ৮ সেপ্টেম্বর নওগাঁ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১-এ মামলা করেন তিনি। আদালতের নির্দেশে ওই বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর মামলাটি নওগাঁ সদর থানায় নথিভুক্ত হয়। ২০২১ সালের ২৫ জানুয়ারি স্বামী ও শাশুড়িকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। সংবাদ সম্মেলনে শাপলা বেগম বলেন, মামলার পর থেকেই তাকে এবং তাঁর মা–বাবাকে হুমকি-ধমকি দেওয়া হচ্ছে। আতিকুর রাষ্ট্রপক্ষের সরকারি কৌঁসুলিকে (পিপি) বলেছেন, তিনি নাকি জেলার শরিফুলের মধ্যস্থতায় দুই বছর আগে তাকে তালাক দিয়েছেন। মোহরানার টাকাও নাকি পরিশোধ করেছেন। মামলার পরবর্তী শুনানিতে জেলার শরিফুল নাকি এ বিষয়ে সাক্ষ্য দিতে আদালতে আসবেন। তালাক ও মোহরানা নিয়ে যেসব কথা বলা হচ্ছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং আতিকুর ও শরিফুলের সাজানো নাটক।

তিনি মামলায় ন্যায়বিচার পাবেন কি না, সেটা নিয়ে সংশয়ে আছেন। তিনি স্ত্রী-সন্তানের অধিকার ও ন্যায়বিচার নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রী সহ সরকারের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। অভিযোগের বিষয়ে কারারক্ষী আতিকুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাই না। আদালতে মামলা চলমান, যা বলার সেখানেই বলব। শুধু বলব, আমার বিরুদ্ধে নির্যাতন ও যৌতুকের যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। জেলার শরিফুল ইসলাম বলেন, বগুড়ায় কর্মরত অবস্থায় কারারক্ষী আতিকুরের স্ত্রী স্বামীর বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ নিয়ে তার কাছে একবার এসেছিলেন। তিনি তাকে মামলা করার পরামর্শ দিয়েছিলেন। তার সঙ্গে খারাপ আচরণের যে অভিযোগ করা হচ্ছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২২, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x