শিরোনাম:
বোয়ালখালীতে নবনিযুক্ত ১৪ জন স্বাস্থ্য সহকারীদের বরণ অনুষ্ঠান সম্পুন্ন গোপালগঞ্জে টুঙ্গিপাড়ায় চাঁদা আদায় করতে গিয়ে জনতার হাতে আটক -০১ চট্টগ্রামে সীমানা গুলোই সস্ত্রাসীদের নীরব আস্তানা : প্রশাসন নিরব চট্টগ্রামে এক ইউপি চেয়ারম্যান গ্রেফতার সাংবাদিক জুয়েল খন্দকারের বিরুদ্ধে কাউন্সিলর সাহেদ ইকবাল বাবুর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত চাঁদার দাবিতে হাবিববাহিনীর হামলায় আহত ১, এলাকাবাসীর ঝাড়ু মিছিল সদ্য যোগদানকৃত রেঞ্জ ডিআইজির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ কাশিয়ানির রাহুথড় উদয়ন বিদ্যাপিঠ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ অপসারণ কাশিয়ানীতে নকল পণ্যের ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান বোয়ালখালীতে গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে আহত ৫

চট্টগ্রামে ঈদুল আজহাকে ঘিরে বেড়েছে কামারদের ব্যস্ততা

এম মনির চৌধুরী রানা চট্টগ্রাম
  • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৫ জুন, ২০২৪
6.9kভিজিটর

ঈদুল আজহাকে ঘিরে চট্টগ্রামে বেড়েছে কামারদের ব্যস্ততা। ক্রেতারা খুঁজছেন শান দেয়া ঝকঝকে দা ও ছুরি। কেউ কেউ পরখ করে নিচ্ছেন ঠিকমতো হাঁড় কাটবে কিনা। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কামার পাড়ায় ঝনঝন শব্দ জানান দিচ্ছে তাদের কাজের ব্যস্ততা। তবে স্থানীয় প্রশাসন ও কর্মকাররা ক্ষতিকর যন্ত্রপাতির অপব্যবহার করতে দেন না বলে জানিয়েছেন। একসময় কৃষিকাজ, বাড়িঘর মেরামত ও গৃহস্থালী কাজের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন ছিলো কামারদের। ব্যবসাটা তখন ছিলো জমজমাট।

হাল আমলে প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় সেই পেশা এখন কোনঠাসা হয়ে পরেছে। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়েও গ্রামে গ্রামে ছিলো কামারদের অবস্থান। এখন কাঁচামালের মূল্য তিনগুণ বৃদ্ধি পাওয়ায় লোকসানের কারণে শত শত মানুষ এই পেশা পরিবর্তন করেছেন। তবে কামারদের দক্ষ হাতের কাজের এখনো জনপ্রিয়তা রয়েছে।

যতোটা না রেডিমেড দা-ছুরির ব্যাপারে। ফলে কোরবানি এলেই আবার লোকজন ছুটে আসেন কামারদের কাছেই। এই ছুরি বা দা দিয়ে কোরবানি দেয়া গরুর যেকোনো হাড় বা শক্ত মাংস সহজে কাটাকাটি করা যায়। ভোগান্তিতে পরতে হয় না তাদেরকে। গুণগতমানের কারণে এখনো মানুষ তাদের কাছে আসে।চট্টগ্রামে সদর উপজেলার কর্নফুলী বাজারের সবচেয়ে পুরাতন কর্মকার একরাম জানান, প্রায় ৩৬ বছর ধরে এই পেশায় আছি।

পেশাটার প্রতি মায়া পড়ে গেছে। ছাড়তে পারি না। এখন ১২/১৩ টাকার কয়লা ৩০-৩৫ টাকা কেজিতে কিনতে হচ্ছে। ৩০ টাকা কেজির লোহা কিনতে হচ্ছে একশ টাকার উপরে। সবকিছুর দাম বাড়লেও আমাদের তৈরি জিনিসপত্রের দাম তেমনটা বাড়েনি। ফলে অল্প লাভেই সন্তুষ্ট থাকতে হচ্ছে। পার্শ্ববর্তী উপজেলা আনোয়ারা রায়পুর ইউনিয়নের বাসিন্দা অনিল ও অমরেশ দুই ভাই প্রায় ৩৭ বছর ধরে কামারের কাজ করছেন।

পাশেই কাজ করছেন তাদের গ্রামের কৃষ্ণ মোহন। তারা জানান, একসময় ছিনাইতে ২৫ ঘর লোক কামারের পেশায় নিয়োজিত ছিলো। এখন ৮ থেকে ১০ জন এই পেশায় আছে। বাকিরা অন্য পেশায় চলে গেছে। এখানে তৈরি করা হয় দা,বটকি,চুরি,হন্দা,কুড়াল,কাঁচি, সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় কাজে ব্যবহারিত জিনিস পত্র।

এসব যন্ত্রপাতি তৈরি করতে প্রশাসনের কোনো অনুমতি নেয়া লাগে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তারা জানান, এসব যন্ত্রাদি তৈরি করতে তাদেরকে কারো কাছ থেকে কোনো অনুমতি নিতে হয় না। কিন্তু সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে ব্যবহার হয় এমন যন্ত্রপাতি তারা কখনো তৈরি করেন না। শুধুমাত্র সাংসারিক ও মাঠের কাজে ব্যবহার করা যায় এমন জিনিসই তৈরি করে আসছেন তারা যুগের পর যুগ ধরে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২২, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x