শিরোনাম:
বোয়ালখালীতে নবনিযুক্ত ১৪ জন স্বাস্থ্য সহকারীদের বরণ অনুষ্ঠান সম্পুন্ন গোপালগঞ্জে টুঙ্গিপাড়ায় চাঁদা আদায় করতে গিয়ে জনতার হাতে আটক -০১ চট্টগ্রামে সীমানা গুলোই সস্ত্রাসীদের নীরব আস্তানা : প্রশাসন নিরব চট্টগ্রামে এক ইউপি চেয়ারম্যান গ্রেফতার সাংবাদিক জুয়েল খন্দকারের বিরুদ্ধে কাউন্সিলর সাহেদ ইকবাল বাবুর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত চাঁদার দাবিতে হাবিববাহিনীর হামলায় আহত ১, এলাকাবাসীর ঝাড়ু মিছিল সদ্য যোগদানকৃত রেঞ্জ ডিআইজির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ কাশিয়ানির রাহুথড় উদয়ন বিদ্যাপিঠ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ অপসারণ কাশিয়ানীতে নকল পণ্যের ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান বোয়ালখালীতে গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে আহত ৫

আওয়ামী লীগের ৩০ জন নেতা নৌকা পেয়েও হারালেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২৩
23.7kভিজিটর

জাতীয় পার্টিকে ২৬টি এবং ১৪ দলের শরিকদের ৬টি আসন ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। এর ফলে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই ৩২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী থাকছে না। দলীয় প্রার্থীদের প্রত্যাহার করে নেওয়ার বিষয়টি নির্বাচন কমিশনে (ইসি) চিঠি দিয়ে জানিয়েছে আওয়ামী লীগ।

রোববার বিকেলে এই চিঠি দেওয়া হয়। আওয়ামী লীগ গত ২৬ নভেম্বর জাতীয় সংসদের ৩০০ আসনের মধ্যে ২৯৮টিতে দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করেছিল। তখন যাঁরা নৌকা প্রতীক পেয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে ৩০ জন মাত্র ২১ দিনের মাথায় বাদ পড়লেন।
১৪ দলের শরিক ও জাতীয় পার্টির (জাপা) সঙ্গে আসন নিয়ে সমঝোতা হওয়ায় নৌকা পেয়েও তাঁরা হারালেন। অথচ তাঁদের সবাই দলীয় মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। বাছাইয়েও তাঁদের মনোনয়নপত্র বৈধ হয়েছিল। কিন্তু ১৭ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে তাঁদের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের কথা ইসিকে জানিয়েছে আওয়ামী লীগ।


জাপা সঙ্গে আওয়ামী লীগের সমঝোতা হয়েছে

ঠাকুরগাঁও—৩, নীলফামারী—৩ ও ৪, রংপুর—১ ও ৩, কুড়িগ্রাম—১ ও ২, গাইবান্ধা—১ ও ২, বগুড়া—২ ও ৩, সাতক্ষীরা—২, পটুয়াখালী—১, বরিশাল—৩, পিরোজপুর—৩, ময়মনসিংহ—৫ ও ৮, কিশোরগঞ্জ—৩, মানিকগঞ্জ—১, ঢাকা—১৮, হবিগঞ্জ—১, ব্রাহ্মণবাড়িয়া—২, ফেনী—৩, চট্টগ্রাম—৫ ও ৮ এবং নারায়ণগঞ্জ—৫ আসনে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জ—৫ আসনে আগে থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিল না।

১৪ দলের শরিকদের মধ্যে ওয়ার্কার্স পার্টি দুটি

(বরিশাল—২ ও রাজশাহী—২), জাসদ তিনটি (কুষ্টিয়া—২, বগুড়া—৪ ও লক্ষ্মীপুর—৪) ও জাতীয় পার্টি (জেপি) একটি আসন (পিরোজপুর—২) পেয়েছে।
২৬ আসনে যাঁরা প্রার্থী ঠাকুরগাঁও—৩ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন মো. ইমদাদুল হক। এই আসন জাপার বর্তমান সংসদ সদস্য হাফিজ উদ্দিন আহম্মেদকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
নীলফামারী—৩ আসনে মো. গোলাম মোস্তফাকে নৌকা দিয়েছিল আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার বর্তমান সংসদ সদস্য রানা মোহাম্মদ সোহেলকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
নীলফামারী—৪ আসনে মো. জাকির হোসেনকে মনোনয়ন দিয়েছিল আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার বর্তমান সংসদ সদস্য আহসান আদেলুর রহমানকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।


রংপুর—১ আসনে নৌকা পেয়েছিলেন মো. রেজাউল করিম। এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জাপার বহিষ্কৃত নেতা মসিউর রহমান (রাঙ্গা)। তিনি টানা দুবারের সংসদ সদস্য। এই আসন জাপাকে ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। তবে রাঙ্গার পরিবর্তে এবার এই আসনে জাপার প্রার্থী হোসেন মকবুল শাহরিয়ার।


রংপুর—৩ আসনে নৌকার প্রার্থী ছিলেন তুষার কান্তি মণ্ডল।

২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন জাপার প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদ। তাঁর মৃত্যুর পর ২০১৯ সালে উপনির্বাচনে এই আসন থেকে সংসদ সদস্য হন তাঁর ছেলে রাহগির আলমাহি এরশাদ (সাদ এরশাদ)। সাদ এবার দলীয় মনোনয়ন পাননি। তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থীও হননি। আসনটি এবারও জাপাকে ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। এবার নির্বাচন করবেন দলটির চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

কুড়িগ্রাম—১ আসনে নৌকার প্রার্থী মো. আছলাম হোসেন সওদাগরকে প্রত্যাহার


কুড়িগ্রাম—১ আসনে নৌকার প্রার্থী মো. আছলাম হোসেন সওদাগরকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। তিনি এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য। এখানে জাপার প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান।
কুড়িগ্রাম—২ আসনে নৌকার প্রার্থী মো. জাফর আলীকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। আসনটি জাপার বর্তমান সংসদ সদস্য পনির উদ্দিন আহমেদকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।


গাইবান্ধা—১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আফরুজা বারীকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। আসনটি জাপার প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য শামীম হায়দার পাটোয়ারীকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
গাইবান্ধা—২ আসনে টানা তিনবারের সংসদ সদস্য মাহবুব আরা বেগমকে ( গিনি) প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার প্রার্থী ও সাবেক সংসদ সদস্য মো. আব্দুর রশিদ সরকারকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
বগুড়া—২ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী তৌহিদুর রহমানকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। আসনটি জাপার প্রার্থী ও টানা দুবারের সংসদ সদস্য শরিফুল ইসলাম জিন্নাহকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।


বগুড়া—৩ আসনে নৌকার প্রার্থী মো. সিরাজুল ইসলাম খানকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। আসনটি জাপার প্রার্থী টানা দুবারের সংসদ সদস্য মো. নুরুল ইসলাম তালুকদারকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
সাতক্ষীরা—২ আসনে নৌকার প্রার্থী মো. আসাদুজ্জামানকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। জাপার প্রার্থী মো. আশরাফুজ্জামানকে আসনটি ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।


পটুয়াখালী—১ আসনে নৌকার প্রার্থী মো. আফজাল হোসেনকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

আসনটি জাপার কো—চেয়ারম্যান ও সাবেক সংসদ সদস্য এ বি এম রুহুল আমীন হাওলাদারকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
বরিশাল—৩ আসনে দলীয় প্রার্থী সরদার মো. খালেদ হোসেনকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার বর্তমান সংসদ সদস্য গোলাম কিবরিয়াকে (টিপু) ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।


পিরোজপুর—৩ আসনে দলীয় প্রার্থী মো. আশরাফুর রহমানকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার প্রার্থী মো. মাশরেকুল আজমকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
ময়মনসিংহ—৫ আসনে দলীয় প্রার্থী মো. আব্দুল হাই আকন্দকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য সালাহ উদ্দিন আহমেদকে (মুক্তি) ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
ময়মনসিংহ—৮ আসনে দলীয় প্রার্থী মো. আব্দুছ ছাত্তারকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার প্রার্থী ও টানা দুবারের সংসদ সদস্য ফখরুল ইমামকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

আসনে দলীয় প্রার্থী মো. নাসিরুল ইসলাম খানকে প্রত্যাহার


কিশোরগঞ্জ—৩ আসনে দলীয় প্রার্থী মো. নাসিরুল ইসলাম খানকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি ছেড়ে দেওয়া হয়েছে জাপার মহাসচিব মো. মুজিবুল হককে (চুন্নু)।
মানিকগঞ্জ—১ আসনে দলীয় প্রার্থী মো. আব্দুস সালামকে প্রত্যাহার করে জাপার প্রার্থী জহিরুল আলমকে আসনটি ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ।


ঢাকা—১৮ আসনে দলীয় প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মোহাম্মদ হাবিব হাসানকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি ছেড়ে দেওয়া হয়েছে জাপার চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের স্ত্রী ও দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেরীফা কাদেরকে।
হবিগঞ্জ—১ আসনে দলীয় প্রার্থী মো. মুশফিক হুসেন চৌধুরীকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুল মুনিম চৌধুরীকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া—২ আসনে দলীয় প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মো. শাহজাহান আলমের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার প্রার্থী মো. আবদুল হামিদকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তবে পরে জাপা উচ্চ পর্যায়ের একটি সূত্র আজ রাতে জানিয়েছে, এই আসনে মনোনয়ন পেয়েছেন রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া।

ফেনী—৩ আসনে দলীয় প্রার্থী মো. আবুল বাশারকে প্রত্যাহার করে নিয়ে জাপার প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীকে ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ।


চট্টগ্রাম—৫ আসনে দলীয় প্রার্থী মোহাম্মদ আবদুস সালামকে প্রত্যাহার করে নিয়ে আসনটি জাপার প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদকে ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ।
চট্টগ্রাম—৮ আসনে দলীয় প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য নোমান আল মাহমুদকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। আসনটি জাপার প্রার্থী মো. সোলায়মান আলম শেঠকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জ—৫ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দেয়নি। এ আসনে জাপার প্রার্থী সেলিম ওসমান।
১৪ দলের যাঁরা নৌকায় চড়বেন
আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিকদের মধ্যে ওয়ার্কার্স পার্টি দুটি, জাসদ তিনটি ও জাতীয় পার্টিকে (জেপি) একটি আসন ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ওই তিন দলের প্রার্থীরা নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করবেন। এর মধ্যে জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু লড়বেন কুষ্টিয়া—২ আসনে। এই আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ঘোষণা করেনি।
জাসদকে ছেড়ে দেওয়া আরেকটি আসন বগুড়া—৪।

এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন মো. হেলাল উদ্দিন কবিরাজ। এখন নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়বেন জাসদ নেতা এ কে এম রেজাউল করিম তানসেন। এ ছাড়া লক্ষ্মীপুর—৪ আসনটিও জাসদকে ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন ফরিদুন্নাহার। এখন নৌকা প্রতীক নিয়ে ভোট করবেন জাসদের প্রার্থী মোশারফ হোসেন।


ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন ঢাকা—৮ আসনের টানা তিনবারের সংসদ সদস্য। এবার এই আসনে আওয়ামী লীগ নিজেদের প্রার্থী দিয়েছে। মেনন লড়বেন বরিশাল—২ আসনে। এই আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছিলেন তালুকদার মোহাম্মদ ইউনূস।


ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা রাজশাহী—২ আসন থেকে নৌকা প্রতীকে লড়বেন। তিনি এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য। এখানে প্রথমে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন মোহাম্মদ আলী।
জাতীয় পার্টির (জেপি) সভাপতি আনোয়ার হোসেন মঞ্জু পিরোজপুর—২ আসনে নৌকা প্রতীকে লড়বেন। তিনি এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য। এখানে প্রথমে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন কানাই লাল বিশ্বাস।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২২, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x