শিরোনাম:
গঙ্গাচড়ায় চাল না দিয়ে বৃদ্ধসহ দু’জনকে পেটালেন গ্রাম পুলিশ ! জেলা প্রশাসকের নির্দেশ অমান্য করে আলফাডাঙ্গায় চলছে মাটি কাটার মহোৎসব,উপজেলা প্রশাসন পদক্ষেপ গ্রহনে গাফলতি চট্টগ্রামে ঝুট গুদামে আগুন জেলা প্রশাসন পঞ্চগড় কর্তৃক  আয়োজিত ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী-২০২৪ ইং নওগাঁয় নিজ বাড়ির সামনে খুন হলেন মাতব্বর নওগাঁয় চাঞ্চল্যকর নাজিম হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন ও দুজন গ্রেফতার চট্টগ্রামের কালুরঘাট সেতু যান ও পথচারী চলাচলে প্রস্তুত কালিগঞ্জে ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ৪৭ পরিবারের মাঝে নগদ টাকা বিতরণ ঈদে ভাড়া নৈরাজ্য-সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধের দাবি যাত্রীকল্যাণ সমিতির আসাদুজ্জামান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত

আলফাডাঙ্গায় গ্রেফতারী পরোয়ানা ভুক্ত ১৮টি প্রতারণা সিআর মামলার দুই আসামি গ্রেফতার

আরিফুজ্জামান চাকলাদার আপেল
  • আপডেটের সময় : সোমবার, ২৬ জুন, ২০২৩
19.0kভিজিটর

আলফাডাঙ্গার গোপালপুর ইউনিয়নের পানাইল গ্রামে বাসিন্দা সৈয়দ বাবন আলী ওরফে আশরাফ আলী ও তার মেয়ে সালমা বেগমের নামে ১৮ টি সিআর মামলা দীর্ঘদিন পলাতক থাকায় দুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। সোমবার ভোরে রাজধানীর খিলক্ষেত থানা এলাকার একটি বাসা থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করে আলফাডাঙ্গা থানা পুলিশ। ক্ষুদ্র পল্লী উন্নয়ন সংস্থা’ নামে এনজিও খুলে গ্রাহকের কাছ থেকে বিপুল অর্থ ও স্বর্নলংকার হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় ১৮ মামলায় থাকা দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এর আগেও তাদের ধরতে একাধিক অভিযান চালানো হয়। কিন্তু প্রতিবারই তারা পুলিশের চোখ ফাঁকি দিতে সক্ষম হয়। আলফাডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবু তাহের এসব তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আলফাডাঙ্গার গোপালপুর ইউনিয়নের কুচিয়া গ্রামের বাসিন্দা সৈয়দ বাবন আলী ওরফে আশরাফ আলী ও তার মেয়ে সালমা বেগম ২০১০ সালের দিকে ‘ক্ষুদ্র পল্লী উন্নয়ন সংস্থা’ নামে একটি এনজিও করেন।

তারা গ্রাহকদের বিপুল আমানত নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে তাদের বিরুদ্ধে ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত মোট ১৮টি মামলা হয়। এসব মামলায় আদালত দশটিতে একবছর করে এবং মোট ৩৮ লাখ ৪০ হাজার টাকার জরিমানা করেন।

তাছাড়া মামলার পর থেকে পালিয়ে থাকায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়। তাদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালালেও তা ব্যর্থ হয়। আবু তাহের আরও জানান, অভিযুক্তদের ধরতে আলফাডাঙ্গা থানার এসআই বিনয় বাড়ৈ, বিট অফিসার এসআই মোশারফ হোসেন, এসআই রবিউল ইসলাম যৌথভাবে তৎপরতা চালান। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তা ও জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দিক নির্দেশনায় সোমবার ভোরে রাজধানীর খিলক্ষেতের একটি বাসা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

পরে তাদেরকে আলফাডাঙ্গা থানায় আনা হয়। আসামীরা নিজেদের গ্রেপ্তার এড়াতে দীর্ঘদিন ছদ্মনামে রাজধানীতে আত্মগোপনে ছিলেন। এসময় তারা এলাকার কারও সঙ্গে যোগাযোগ রাখেননি। সালমা বেগমের বিরুদ্ধে পাঁচটি সিআর সাজা এবং চারটি সিআর পরোয়ানা রয়েছে। এছাড়া তার বাবা সৈয়দ আশরাফ আলীর বিরুদ্ধে পাঁচটি সিআর সাজা এবং চারটি সিআর পরোয়ানা আছে বলে জানান ওসি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২২, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x