চট্টগ্রাম র‌্যাব-৭ অধিনায়ক ইউসুফ বিপিএম(সাহসকিতা) এএসপি মুরাদ পিপিএম রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদকে ভূষিত হয়েছেন।

মোঃ শহিদুল ইসলাম সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টারঃ
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২৩

বাংলাদেশ আমার অহংকার এই স্লোগান নিয়ে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বিভিন্ন ধরণের অপরাধীদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে জোরালো ভূমিকা পালন করে আসছে। র‌্যাব সৃষ্টিকাল থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির সার্বিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে। র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম অস্ত্রধারী সস্ত্রাসী, ডাকাত, ধর্ষক, দুর্ধষ চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, খুনি, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী ও প্রতারকদের গ্রেফতার এবং বিপুল পরিমাণ অবৈধ অস্ত্র, গোলাবরুদ ও মাদক উদ্ধারের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করায় সাধারণ জনগনের মনে আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।


এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার ৩ জানুয়ারি পুলিশ সপ্তাহ-২০২৩ উপলক্ষে রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইনস মাঠে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থেকেই আনুষ্ঠানিকভাবে অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ র‌্যাব-৭, চট্টগ্রামের অধিনায়ক বিএ-৬৪০০ লেঃ কর্নেল এম এ ইউসুফ, পিএসসিকে বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম),সাহসিকতা এবং অপারেশনস্ এবং জঙ্গি সেল অফিসার বিপি-৯২১৮২২০৫৫৮ সিনিয়র এএসপি মোঃ রায়হান উদ্দিন মোরাদকে রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদকে (পিপিএম) ভূষিত করা হয় ।


বিএ-৬৪০০ লেঃ কর্নেল এম এ ইউসুফ, পিএসসি র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এর অধিনায়ক হিসাবে যোগদানের পর থেকে তার সুযোগ্য নেতৃত্ব, সঠিক দিকনির্দেশনা, দুঃসাহসিক আভিযানিক পরিকল্পনা এবং যেকোন উদ্ভুত পরিস্থিতি মোকাবেলায় অসাধারণ সাফল্য র‌্যাবের ভাবমূর্তিকে সমৃদ্ধ করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন।

তিনি শুধু নিজেকে সাহসিকতাপূর্ণ অভিযানে সম্পৃক্তই করেননি বরং সামনে থেকে নেতৃত্বদানের মাধ্যমে সরেজমিনে অভিযান পরিচালনা করেন। তার অসংখ্য সফল অভিযানের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপুর্ণ অভিযান জঙ্গি বিরোধী অভিযান। তিনি বিগত ০৩ মাসেরও অধিক সময় ধরে বান্দরবানের দূর্গম পাহাড়ী অঞ্চলে সক্রিয়ভাবে অভিযান পরিচালনা করে বাংলাদেশের ইতিহাসে অন্যতম বড় জঙ্গি বিরোধী অভিযানে সূরা সদস্যসহ অসংখ্য জঙ্গি গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছেন।

মাদক বিরোধী অভিযানে তাঁর সুদক্ষ পরিকল্পনা ও নেতৃত্বে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম গত এক বছরে ১০.৭৩৮ কেজি আফিম, ৪৩ লক্ষ ৫০০ পিস ইয়াবা, ১৯,৩৩৫ বোতল ফেন্সিডিল, ৭,০৪০ কেজি গাঁজা, ১,২৩১ বোতল বিদেশী মদ, ৬৮১ ক্যান বিয়ার এবং ৯৬,০০০ লিটার চোলাইমদসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য ধ্বংস ও উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে। বিগত ০১ বছওে তার সুদক্ষ পরিকল্পনা ও নেতৃত্বে র‌্যাব-৭ বেশ কয়েকটি অস্ত্র তৈরীর কারখানা ধ্বংসসহ ২১৫ টি অগ্নেয়াস্ত্র ও ৮১০ রাউন্ড গুলি/কার্তূজ উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে।

এছাড়াও চট্টগ্রামের ভয়ংকর জঙ্গল সলিমপুর তথা চট্টগ্রামের ভিতরে আরেক চট্টগ্রাম নামক স্থানে তাঁর নেতৃত্বে গত ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২ইং তারিখে অভিযান পরিচালনা করে অন্যতম গডফাদার ও শীর্ষ সন্ত্রাসী মশিউর ও তার বাহিনীকে গ্রেফতার করে তাদের কাছ থেকে ১৬ টি আগ্নেয়াস্ত্র (০২ টি বিদেশী পিস্তল, ১৪ টি ওয়ানশুটারগান) এবং ৪০ রাউন্ড গুলি/কার্তুজ উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে; যার ফলে বর্তমানে সেখানে প্রশাসন কর্তৃক বিভিন্ন সরকারি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে এবং জনসাধারণের মাঝে শান্তি ফিরে এসেছে। তাঁর নেতৃত্বে নিয়মিতভাবে জলদস্যু বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে সর্বমোট ৪৮ জন জলদস্যুকে ২৯ টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ (০১ টি এসএমসি, ০১ টি বিদেশী পিস্তল, ২৩ টি ওয়ানশুটারগান, ০১ টি দুনলা বন্দুক, ০৩ টি এসবিবিএল) গ্রেফতার করে সমুদ্রপথ নিরাপদ রাখতে সক্ষম হয়েছেন।

আভিযানিক কর্মকান্ডের পাশাপাশি র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম বিভিন্ন মানবিক কার্যক্রম করে আসছে। গত ০৪ জুন ২০২২ইং তারিখে সীতাকুন্ড কন্টেইনার ডিপোতে অগ্নিকান্ডের দূর্ঘটনায় অধিনায়ক র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এবং সংগীয় র‌্যাব সদস্য নিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে উদ্ধার, আগুন নিয়ন্ত্রণ এবং অগ্নিদগ্ধদের মাঝে রক্তদান কর্মসূচী পরিকল্পনা এবং চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসা সেবা তদারকির মাধ্যমে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন।

গত ২০১৮ এবং ২০২০ সালে র‌্যাব-৭, পতেঙ্গা, চট্টগ্রামের কাছে বাঁশখালী, মহেশখালী, কুতুবদিয়া এবং পেকুয়া উপকূলীয় এলাকা হতে আত্মসমর্পণকৃত জলদস্যুদেরকে ঈদ এবং বিভিন্ন উৎসবে উপহার সামগ্রী বিতরণ এবং তাদের বর্তমান জীবন যাপনে বিভিন্নভাবে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম সহায়তা প্রদান করে আসছে। অধিনায়ক র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এর নেতৃতে বিভিন্ন সময়ে এতিম দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ, বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে আর্থিক সহায়তা প্রদান, শীতবস্ত্র বিতরণ এবং প্রতিবন্ধীদের মাঝে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও তার নেতৃত্বে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম চলমান করোনাকালীন সময়ে জনসাধরণকে সচেতন করাসহ বিভিন্ন সহায়তামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে।


পুলিশ সপ্তাহ-২০২৩ উপলক্ষে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রামের অধিনায়ক বিএ-৬৪০০ লেঃ কর্নেল এম এ ইউসুফ, পিএসসিকে বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) এবং অপারেশনস্ এবং জঙ্গি সেল অফিসার বিপি-৯২১৮২২০৫৫৮ সিনিয়র এএসপি মোঃ রায়হান উদ্দিন মোরাদকে রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) প্রাপ্তিতে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এর সদস্যদের পাশাপাশি আপনাদের গণমাধ্যম কর্মীর অবদান অনস্বীকার্যের বিষয়ও র‌্যাব-৭ ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। ভবিষ্যতে এই ধরনের অশেষ সহযোগিতা দেশ ও জাতির কল্যানে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা তাদের চলার পথকে প্রসারিত করবে বলে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২২, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x