শিরোনাম:
পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে ঈদের দিন সাবেক পরকীয়া প্রেমিকের হাতে নিহত হয়েছেন শাহনাজ পারভীন নামে এক গৃহিণী। পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগ নেতা নূরে আলম। পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগ নেতা সাওন চৌধুরী গভীর রাতে দরজায় কড়া নাড়লেন প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী, দিলেন ঈদের উপহার পাটগ্রাম উপজেলা বাসিকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ওসি আবু সাইদ চৌধুরী গোপালগঞ্জে বড়ফা গ্রামের টাইলস মিস্ত্রী খুন চট্টগ্রামের অর্ধশতাধিক গ্রামে ঈদ কাল গোপালগঞ্জে ঈদুল ফিতরের নামাজের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে সারা দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক চট্টগ্রামে বখাটে মতিনের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকায়বাসী

১০ হাজার ৫০০ টাকার টিকিটে মাছ শিকার পরবর্তীতে মাছ কম ধরায় ৬ হাজার টাকা করে ফেরত

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেটের সময় : শনিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২২
51.4kভিজিটর

নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার চন্দননগর ইউনিয়নের করমজাই গ্রামে প্রায় ১০ বিঘা পুকুরে ২৪ ঘন্টা ব্যাপি মস্যৎশিকার অনুষ্ঠিত হয়েছে।
প্রতিবছরই এই দিঘীতে টিকিট কেটে মাছ শিকার করতে আসেন দেশের বিভিন্ন এলাকার মাছ শিকারিরা। তাদের জন্য দিঘীর পারে বানানো হয়েছে মাচা।


এবার এই মাছ ধরা উৎসব হয়েছে গত শুক্রবার বিকেল ৪ টা থেকে শনিবার পর্যন্ত। মাছ ধরতে শুক্রবার রাত থেকে দিঘীর পারে তাঁবু টানিয়ে অবস্থান নিয়ে রেখেছিলেন মাছ শিকারিরা। কেউ কেউ সেখানেই মাছ রান্না করে ছোটোখাটো পিকনিকও সেরে নিয়েছেন।

এবার দিঘির পারে মাছ শিকারের জন্য রাখা ছিল ১৬ টি মাচা। প্রতিটি মাচা ১০ হাজার ৫০০ টাকা টিকিটে বিক্রি করা হয়েছে। মাছ ধরতে সেখানে গিয়েছেন রাজশাহী , সহ আন্তঃজেলার শৌখিন মাছ শিকারিরা।
তবে এবার মাছ কম পাওয়ায় কিছুটা হতাশ হয়েছেন তারা।

নওগাঁ থেকে আসা মাছ শিকারি শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘ পুকুরে এবার তাদের মাছগুলো আকারে ছোট। ২০০ থেকে ৬০০ বা ৭০০ গ্রাম ওজনের মাছ বেশি। বড় মাছের দেখাই মেলে না।’
আমরা যখন টিকিট কিনি তারা আমাদের বলেছিল যে ২ থেকে ৩ কেজি ওজনের মাছ আছে। কিন্তু তা তো আমরা একটাও দেখলাম না কারও বড়শিতে উঠতে।’

, ‘মাছ শিকার করতে ভালো লাগে। তাই শখের বশে যেখানে মাছ শিকারের খবর পাই সেখানেই যাওয়ার চেষ্টা করি। অনেক পুকুরে মাছ শিকারের অভিজ্ঞতা আছে।

‘তবে এখানে মাছগুলো আকারে ছোট। আধা কেজি থেকে এক কেজির মাছই বেশি ধরা পড়ছে। আমরা ৯ জন এসেছি। ১০ হাজার ৫০০ টাকায় মাচা কিনেছি। নিজেদের খাবার, মাছের খাবার, মাইক্রো ভাড়া সব মিলিয়ে আমার ২৫/ ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়ে গেছে। অথচ অর্ধেক টাকাও উঠবে না।’

উক্ত পুকুরের কতৃপক্ষের কাছে বিষয় টি জানতে চাইলে তারা বলেন, আমরা বছরে ১ দিন মাছ ধরার প্রতিযোগিতা করে থাকি, যাতে করে সবাই মাছ শিকার করতে পারে, আনন্দ করতে পারে এবং লাভ ও করতে পারে।

কিন্তু পরবর্তীতে মাছ কম হওয়ায় মাছ শিকারিদের চাপে সময় শেষ হওয়ার ৬ ঘন্টার মাথায় মাছ শিকার কাযক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এই সময় প্রতিটি টিকিতে ৬ হাজার টাকা করে ফেরত দেওয়া হয়েছে বলে জানতে পেরেছি।

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২২, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x