শিরোনাম:
এলএলবি ফাইনাল পরীক্ষায় শহীদ অ্যাডভোকেট আবদুর রব সেরনিয়াবাত আইন মহাবিদ্যালয় এর সাফল্য “বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে গবেষণা ও উদ্ভাবনে উৎকর্ষতা অর্জন করতে হবে” ড, মোহাম্মদ আলমগীর। বোয়ালমারীতে এসডিসির পক্ষ থেকে আশ্রয়ণ প্রকল্পবাসিদের ফ্রি স্বাস্থ্যসেবা প্রদান বোয়ালমারীতে চোরাই গরুর মাংশ বিক্রি অভিযুক্ত কসাই পলাতক প্রধানমন্ত্রী শেখ হা‌সিনার ৪১তম স্ব‌দেশ প্রত‌্যাবর্তন দিব‌সের আ‌লোচনা সভা অনু‌ষ্ঠিত স্কুল ছাত্রী আত্মহত্যার আসামিদের গ্রেপ্তার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন। চাটমোহরে বিষপানে দুই স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা জামালপুরে মাস ব্যাপী কৃষি,শিল্প বাণিজ্য মেলা উদ্ধোধন নওগাঁ আমের রাজধানী সাপাহারে আবারও ঝড়, আবারও ক্ষয়ক্ষতি গঙ্গাচড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের সমাপনী অনুষ্ঠিত

প্রাকৃতিকভাবে ফুসফুস পরিষ্কার রাখার নিয়ম

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ
  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২২

বর্তমানে যেভাবে বাংলাদেশে আবার করোনার রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তাতে আমাদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রার ছন্দ আমরা আবারও হারাচ্ছি। করোনায় আক্রান্ত হলে একজন রোগীর সবচেয়ে বেশি যে অঙ্গটি ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাহলো আমাদের ফুসফুস।
করোনা আর প্রাকৃতিক দূষণের হুমকিতে আমাদের ফুসফুসের স্বাস্থ্যকে রক্ষা করা একরকম চ্যালেঞ্জই এখন বলা যায়। তাই নিজের ফুসফুসকে সুস্থ রাখতে জীবনযাত্রার কিছু নির্দিষ্ট পরিবর্তন আনুন। এটি করোনা আর বায়ু দূষণের খারাপ প্রভাবগুলোকে পরাজিত করবে সেই সঙ্গে প্রাকৃতিকভাবে আপনার ফুসফুসকে পরিষ্কার করতে পারবে।

বায়ু দূষণের অনেক ক্ষতিকারক প্রভাবের মধ্যে কয়েকটির মধ্যে রয়েছে মাথাব্যথা, বমি বমি ভাব, কিছু অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া, হাঁপানি, শ্বাসযন্ত্রের রোগ এবং ফুসফুসের রোগ। সময়ের প্রয়োজন হলো অবিলম্বে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নেওয়া।

ফুসফুস পরিষ্কারের জন্য নির্দিষ্ট কিছু জীবনযাত্রায় পরিবর্তন, খাবার এবং পানীয় রয়েছে যা আপনার লিভার বা ফুসফুস পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। এর জন্য একটি স্বাস্থ্যকর, সুষম খাদ্য গ্রহণ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বায়ু দূষণ ও করোনা রোগে আক্রান্ত হলে শরীরে ভিটামিন ডি, ই, সি, ক্যালসিয়াম, বিটা ক্যারোটিন, বোমেলাইন, ওমেগা ৩, ফ্যাটি অ্যাসিড এবং কারকিউমিনের মাত্রা হ্রাস পায়। একটি পুষ্টিকর সুষম খাদ্য এই ধরনের পুষ্টির ঘাটতি পূরণে সাহায্য করতে পারে।

বায়ু দূষণ ও করোনার ফলে শরীরে আয়রনের মাত্রাও কমে যায়। এটি কম হিমোগ্লোবিনের মাত্রায় প্রতিফলিত হতে পারে। আপনার যদি আয়রনের ঘাটতি হয় তাহলে আপনাকে অবশ্যই আরও কিছু শাকসবজি, বিটরুট, বীজ, কালো কিশমিশ, গাঢ় গুড়, মসুর, আনারস এবং ডালিম অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

আয়রনের সর্বোত্তম শোষণের জন্য আপনার খাদ্যতালিকায় ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার অন্তর্ভুক্ত করুন। আয়রন সমৃদ্ধ খাবারের সাথে চা বা কফি এড়িয়ে চলুন। কারণ তার এই ধরনের খাবার দেহে আয়রনের শোষণে বাধা দেয়।

আয়রন সমৃদ্ধ খাবারের সাথে ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার থাকাও আয়রন শোষণে হস্তক্ষেপ করতে পারে। আয়রন শোষণ বাড়ানোর জন্য আপনি রাতারাতি তামা পরিশোধিত পানীয় খেতে পারেন। রান্নায় কেস আয়রন পাত্রের ব্যবহার আপনার হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে।

ফুসফুসকে ভালো রাখার আরেকটি উপায় হলো ভাতের পরিমাণের চেয়ে তরকারি বেশি পরিমাণে গ্রহণ করা। এইসব তরকারি, স্যুপ বা সব খাবার তৈরির ভিত্তি হতে হবে টমেটো, রসুন, কালো মরিচ, পেঁয়াজ, আদা, হলুদ, দারুচিনি, নারকেল তেল বা খাঁটি ঘি ।

ফুসফুসকে ভালো রাখতে নিয়মিত শরীরচর্চা ও নির্দিষ্ট কিছু ফুসফুসের ব্যায়াম করুন। এটি শ্বাসযন্ত্রের কার্যকারিতা উন্নত করতে সাহায্য করে এবং শরীরে শ্লেষ্মা এবং টক্সিনের পরিমাণ কমায়। মানসিক প্রশান্তি দেয়।
সূত্রঃ সময় নিউজ

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২২, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x