শিরোনাম:
হাটহাজারীতে মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে স্কুলছাত্রীর গলায় ফাঁস দুর্বৃত্তদের হাতে কলেজ ছাত্র নিহত চবিতে ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে আভ্যন্তরীণ আইন-শৃংখলা নিয়ন্ত্রণ বিষয়ে সভা আজ নিরাপদ সড়ক দিবস,নিরাপদ সড়ক: প্রেক্ষিত বাংলাদেশ রাণীশংকৈলে পুকুরে ডুবে ০৪ বছরের শিশু নিহত সুনামগঞ্জ পৌরসভার ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত জোর করে বিয়ে দেওয়ায় ঠাকুরগাঁওয়ে চেয়ারম্যানসহ গ্রেপ্তার-০৯ পাটগ্রাম দহগ্রামে বন্যায় দিশেহারা হাজারো মানুষ নলছিটিতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার্থে বিশেষ আইনশৃঙ্খলা সভা হিজলার মেঘনা থেকে দুই দিন পর কোস্ট গার্ড সদস্যের মরদেহ উদ্ধার।

হাতীবান্ধায় বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, ৪ মাসের অন্ত:সত্ত্বা নারী শ্রমিক

অনলাইন ডেস্ক:
  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১

মেহেরুবান হাবিব,লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক নারী শ্রমিককে ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া গেছে মিষ্টির দোকানের মালিক আবদার রহমানের বিরুদ্ধে। ধর্ষণের শিকার ওই নারী চার মাসের অন্তসত্বা হয়ে পড়েছেন।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকালে ভুক্তভোগী ওই নারী বাদী হয়ে আবদারের বিরুদ্ধে হাতীবান্ধা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।অভিযুক্ত হোটেল মালিক উপজেলার পূর্ব সিন্দুর্নার মৃত আঃ সোবাহনের ছেলে আবদার রহমান(৫০)। এছাড়া তিনি উপজেলার দইখাওয়া মোড়ের বনফুল মিষ্টি ভান্ডারের মালিক।


জানা গেছে, গত দুই বছর যাবত আবদার রহমানের হোটেলে কাজ করে আসছে ভুক্তভোগী ওই নারী।

আবদার রহমানের সংসারে কোন সন্তান নেই। সেই সুবাদে আবদার রহমান প্রায় ওই নারীকে বিয়ের প্রস্তাব দেন এবং সন্তান নেয়ার কথাও বলেন। এতে ওই নারী রাজি হননি। এমতাবস্থায় গত ১৫ মার্চ রাতে আবদার তার দোকানে ওই নারীকে একা পেয়ে জোড় পূর্বক ধর্ষন করেন।

পরে বিয়ে করবে বলে প্রতিশ্রতি দিয়ে ঘটনাটি কাউ না বলার নিষেধ করে। এরপর প্রায় ওই নারীর সাথে শারিরীক সম্পর্ক করেন আবদার রহমান। এতে ওই নারী অন্ত-সত্বা হয়ে পড়েন। অন্ত সত্বা ওই নারী আবদারকে বিয়ের কথা বললে আবদার বিয়ে না করে সন্তানটি নষ্ট করার জন্য চাপ দেন। ফলে কোন উপায়ন্ত না পেয়ে ওই নারী থানায় অভিযোগ করেন।

ভুক্তভোগী ওই নারী বলেন, আমার পেটে আবদারের চার মাসের সন্তান। আমি অন্ত সত্বা হলে আবদার বিয়ে করবেন। কিন্ত এখন আবদার আমাকে বিয়ে না করে সন্তান নষ্ট করতে বলতেছে।

আমি থানায় অভিযোগ দিয়েছি। আমি এর সঠিক বিচার চাই ও আমি আমার সন্তানের পরিচয় চাই?
এ বিষয়ে অভিযুুক্ত আবদার রহমান বলেন, সে আমার দোকানে কাজ করতো, বেতন নিতো। তার সাথে আমার কোন সম্পর্ক নাই।
তার পেটে কার সন্তান আমি জানি না।
এ বিষয়ে হাতীবান্ধা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এরশাদুল আলম বলেন, অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে দ্রত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২০, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x