মহামারির সময়ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে নয়ছয়!!

কাওসার হোসাইন
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২১ এপ্রিল, ২০২১

গতবছর করোনা মহামারি ছড়িয়ে পরার পর থেকেই দেশে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার বেহাল দশা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠে। চিকিৎসকদের সুরক্ষা সামগ্রীর অভাব, জরুরী কেনাকাটার নামে হরিলুট সহ নানা অনিয়ম বের হয়ে আসে। বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে গঠিত ইমার্জেন্সি রেসপন্স এন্ড পেন্ডামিক প্রিপেয়ার্ডনেস (ই আর পি পি) প্রকল্পের জন্য বরাদ্ধ প্রায় পৌনে সাত হাজার কোটি টাকায় কেনাকাটার নামে শুরু হয় নয়ছয়।

গাড়ির যন্ত্রাংশ তৈরি, ইলেকট্রনিকস সামগ্রী আমদানি কারক প্রতিষ্ঠান সহ নামে-বেনামে নানা ঠিকানাহীন প্রতিষ্ঠানকে বরাদ্ধ দেওয়া হয় শতকোটি টাকা। ফলাফল, পণ্য সরাবরাহ না করেই টাকা তুলে নেয় অনেক প্রতিষ্ঠান।
এই প্রকল্পের নামে আসা একশত দুই কোটি টাকার জীবন রক্ষাকারী চিকিৎসা সামগ্রী গত দশমাস ধরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর-এ পরে আছে। এসব পণ্যের মধ্যে রয়েছে ১২’শ অক্সিজেন কনসেনট্রেটর, বিপুল পরিমান হাই-ফ্লো ন্যাজাল কানুলা, পালস অক্সিমিটার ও পিপিই।

ইউনিসেফ সিএমএসডি-র নামে ভুলে এসব পণ্য পাঠালেও উদ্ধারে কোন উদ্দ্যোগ নেয়নি ইআরপিপি প্রকল্পের কর্মকর্তারা। ফলে খোয়া গেছে অনেক সামগ্রী ও নষ্ট হয়েছে বেশকিছু। এটিকে অব্যবস্থাপনার চরম উদাহরণ হিসেবে দেখছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।
এব্যাপারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. বেনজির আহমেদ বলেন, এটা ভেবে দেখার বিষয় যে কার গাফলতিতে, কি অব্যবস্থাপনায় ও কার অদক্ষতার কারনে এমন সমস্যা সৃষ্টি হলো। যদি এগুলো থেকে রেহাই পেতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা যায় তাহলেই এ ধরনের সমস্যা ক্রমন্বয়ে কমে আসবে।

বিষয়টি নজরে আসার পর তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান স্বাস্থ্য মন্ত্রী।
অনিয়ম আর দুর্নীতির অভিযোগ আসার পর এক বছরের মধ্যে ইআরপিপি-এর দুইজন প্রকল্প পরিচালকে এখন পর্যন্ত বদল করতে হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২০, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x