শিরোনাম:
তিস্তা টোলপ্লাজা এলাকায় ভারতীয় মুদ্রাসহ আটক-২ গঙ্গাচড়ার মর্ণেয়া ইউনিয়নে সামাজিক অবক্ষয় রোধে বিট পুলিশিং সভা বঙ্গবন্ধু মানব কল্যাণ পরিষদ লালমনিরহাট জেলা শাখার সহ সভাপতি নির্বাচিত হলেন পাটগ্রামের নিলয় মাহমুদ রনি শঙ্কু দিবসে মুক্তিযুদ্ধের প্রথম শহীদের বাড়িতে রংপুর জেলা প্রশাসক রংপুরের প্রথম শহীদ শিশু শংকু সমজদারের প্রয়াণ দিবসে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত ৩ মার্চ করোনা আপডেট দিনাজপুরে ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ক দ্বিতীয় সেমিনার অনুষ্ঠিত- ডিমলায় ভুট্টা-ক্ষেত থেকে ২ নারীর মরদেহ উদ্ধার ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন কালীগঞ্জে ৩৪ বোতল ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার

বাংলাদেশের মানুষ ধর্মপ্রাণ ধর্মান্ধ নয় প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০
বাংলাদেশের মানুষ ধর্মপ্রাণ, ধর্মান্ধ নয় প্রধানমন্ত্রী
File photo

র্মকে রাজনীতির হাতিয়ার না বানানোর আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ ধর্মপ্রাণ, ধর্মান্ধ নয়। ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার করবেন না। প্রত্যেককে নিজ নিজ ধর্ম পালনের অধিকার রাখেন।

বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান—সকল ধর্ম ও বর্ণের মানুষের রক্তের বিনিময়ে এ দেশ স্বাধীন হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ৪৯তম বিজয় দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে এসব কথা বলেন।

দেশে ইসলামী মূল্যবোধের প্রসারে বঙ্গবন্ধুর সরকার ও বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের নানা অবদানের কথা ভাষণে উল্লেখ করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা শুধু একজন খাঁটি মুসলমানই ছিলেন না, তিনি ধর্মীয় আচারাদি নিষ্ঠার সঙ্গে প্রতিপালন করতেন।

তার মতো আর কে বাংলার মানুষের মন-মনন-আকাঙ্ক্ষা বুঝতে পারতো! তাই তিনি যখন সংবিধান রচনা করেন, তখন মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটিয়ে বাঙালি জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতা, গণতন্ত্র ও সমাজতন্ত্র-এই চারটি মৌলিক বিষয়কে রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি হিসেবে গ্রহণ করেন।

ইসলামী মূল্যবোধের প্রসারে বঙ্গবন্ধুর অবদানের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ধর্ম নিরপেক্ষতায় বিশ্বাসী জাতির পিতা ইসলাম ধর্মীয় মূল্যবোধ রক্ষা এবং প্রসারে যা করেছেন । ইসলামের নামে মুখোশধারী সরকারগুলো তা কখনই করেনি।

আইন করে মদ-জুয়া-ঘোড়দৌড় নিষিদ্ধ করা, ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করা, মাদ্রাসা বোর্ড স্থাপন, ওআইসির সদস্যপদ অর্জনের মতো কাজগুলো বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই বাস্তবায়িত হয়েছিল স্বাধীনতা অর্জনের মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার সরকার ধর্মীয় শিক্ষা প্রচার এবং প্রসারে যত কাজ করেছে, অতীতে কোনো সরকারই তা করেনি। আমরা ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করেছি। ৮০টি মডেল মাদ্রাসায় অনার্স কোর্স চালু করা হয়েছে।

কওমি মাদ্রাসাকে স্বীকৃতি দিয়েছি এবং দাওয়ারে হাদিস পর্যায়কে মাস্টার্স মান দেওয়া হয়েছে। মাদ্রাসার শিক্ষার্থী-শিক্ষকদের জন্য বিশেষ বরাদ্দ দিয়েছি। প্রতিটি জেলা-উপজেলায় দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে।

ইমাম-মুয়াজ্জিনদের সহায়তার জন্য কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করে দিয়েছি। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আওতায় সারা দেশে মসজিদ-ভিত্তিক পাঠাগার স্থাপন করা হয়েছে। লক্ষাধিক আলেম-ওলামায়ে কেরামের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এত কিছুর পরও ধর্মের নামে মানুষকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৭১ এর পরাজিত শক্তির একটি অংশ মিথ্যা, বানোয়াট, মনগড়া বক্তব্য দিয়ে সাধারণ ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের বিভ্রান্ত করতে ইদানীং মাঠে নেমেছে।

সমাজে অশান্তি সৃষ্টি করতে চাচ্ছে। জাতির পিতা ১৯৭২ সালে বলেছিলেন ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার না করতে। কিন্তু পরাজিত শক্তির দোসররা দেশকে আবার ৫০ বছর আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখছে।

রাজনৈতিক মদদে সরকারকে ভ্রুকুটি দেখানোর পর্যন্ত ধৃষ্টতা দেখাচ্ছে। ’‘এ বাংলাদেশ লালন শাহ, রবীন্দ্রনাথ, কাজী নজরুল, জীবনানন্দের বাংলাদেশ। এ বাংলাদেশ শাহজালাল, শাহ পরান, শাহ মকদুম, খানজাহান আলীর বাংলাদেশ।

এই বাংলাদেশ শেখ মুজিবের বাংলাদেশ; সাড়ে ষোল কোটি বাঙালির বাংলাদেশ। এ দেশ সকলের। এ দেশে ধর্মের নামে আমরা কোন ধরনের বিভেদ-বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে আমরা দেবো না। ধর্মীয় মূল্যবোধ সমুন্নত রেখে এ দেশের মানুষ প্রগতি, অগ্রগতি এবং উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাবেন’, ভাষণে উল্লেখ করেন সরকার প্রধান।

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২০, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25