শিরোনাম:
দাগনভূঞা ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা টানা তিন দিনে ৬শ’র ওপরে করোনা রোগী শনাক্ত জলঢাকায় জীবনতরী পাঠশালার উদ্যোগে হুইল চেয়ার বিতরণ রংপুরে নারী দিবস উপলক্ষে ” নারীর চোখে বাংলাদেশ “এর বধিত কার্যক্রম অনুষ্টিত পটুয়াখালীতে তিন নার্সিং কলেজ ও মেডিকেলের নার্স কর্মকর্তাদের তিন দফা দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন রংপুরে ১৩ কোটি টাকার এলএ চেক বিতরণ দিনাজপুরে টলির চাঁকা বাস্ট হয়ে হেলপারের মৃত‍্যু ডিমলায় ভুট্টা ক্ষেতে লাভলী হত্যা মামলার মূল আসামী গ্রেফতার ভুট্টা ক্ষেতে লাভলী হত্যা মামলার মূল আসামী গ্রেফতার নারী দিবস উপলক্ষে গাইবান্ধায় মহিলা পরিষদের ট্রাক র‍্যালি

ফাইজারের টিকা আসতে পারে ফেব্রুয়ারিতে

আয়শা সিদ্দিকা, বিশেষ প্রতিনিধি রংপুর:
  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২১
ফাইজারের টিকা আসতে পারে

কোভ্যাক্স থেকে বাংলাদেশে করোনার টিকা পাওয়ার সুযোগ রয়েছে আগামী ফেব্রুয়ারিতে। বাংলাদেশ ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা নিতে চায় কি না, তা ১৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে জানাতে হবে। গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

কোভ্যাক্স থেকে বাংলাদেশসহ ১৯২টি দেশে করোনার চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। জানুয়ারির শেষ থেক এই টিকাপ্রদান শুরু হবে। তবে প্রদানের ক্ষেত্রে কিছু শর্ত আছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, এই সিদ্ধান্ত স্বাস্থ্য অধিদপ্তর একা নিতে পারে না। এ চিঠির বিষয়বস্তু নিয়ে মাননীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও সচিব মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলতে হবে। সিদ্ধান্ত তাঁদের কাছ থেকেই আসবে।

কোভ্যাক্সের পক্ষে সদস্যদেশগুলোকে চিঠি দিয়েছেন গ্যাভির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেথ বার্কলি। তিন পৃষ্ঠার চিঠিতে তিনি বলেন, ওষুধ কোম্পানি ফাইজার এবং যেসব দেশ ফাইজারের টিকা সংগ্রহ করেছে, তাদের সঙ্গে কোভ্যাক্স টিকার ব্যাপারে আলাপ-আলোচনা চলছে। তার ভিত্তিতে কোভ্যাক্স জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে বা ফেব্রুয়ারিতে সদস্যদেশগুলোকে টিকা দিতে পারবে।

চিঠিতে কিছু শর্তের কথা উল্লেখ আছে:

এই টিকা ২০২১ সালের মে মাসের মধ্যে প্রয়োগ করতে হবে, জাতীয় করোনা টিকা পরিকল্পনায় একাধিক ধরনের টিকা ব্যবহারের ইচ্ছার প্রকাশ থাকতে হবে। এ ছাড়া ২০২১ সালের জানুয়ারির মধ্যে দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ফাইজারের টিকার অনুমোদন করাতে হবে। তার সঙ্গে ফাইজারের দায়মুক্তির একটি ব্যবস্থা থাকতে হবে।

চিঠিতে কিছু সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে। ১৮ জানুয়ারির মধ্যে সদস্যদেশগুলোকে আগ্রহের বিষয়টি কোভ্যাক্সকে জানাতে হবে। ১৯ থেকে ২৮ জানুয়ারির মধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনিসেফ বা গ্যাভি সংশ্লিষ্ট দেশের আগ্রহপত্র ও অবকাঠামো পরিস্থিতি মূল্যায়ন করবে। তারা ২৯ জানুয়ারির মধ্যে প্রথম ঢেউয়ের টিকা বিতরণের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করবে এবং সদস্যদেশগুলোকে জানিয়ে দেবে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, ফাইজারের টিকার জন্য যে ধরনের কোল্ড চেইন বা হিমশৃঙ্খল দরকার, তা বাংলাদেশে নেই।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ফার্মাকোলজি বিভাগের অধ্যাপক মো. সায়েদুর রহমান বলেন, দেশের কিছু গবেষণা প্রতিষ্ঠানে কিছু রেফ্রিজারেটর আছে, যেখানে তীব্র শীতল তাপমাত্রায় এ ধরনের টিকা রাখা সম্ভব। এসব প্রতিষ্ঠান মূলত ঢাকা শহরকেন্দ্রিক। এই টিকা আনলে ঢাকা শহরের কিছু মানুষকে দেওয়া সম্ভব হবে। টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে যে ন্যায্যতার কথা বলা হচ্ছে, তা এ ক্ষেত্রে বিঘ্নিত হওয়ার ঝুঁকি থাকবে।

জানা গেছে, বিএসএমএমইউ, আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি), রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) এ ধরনের রেফ্রিজারেটর আছে। তা ছাড়া আরও প্রতিষ্ঠান ও বড় বড় হাসপাতালে এ ধরনের রেফ্রিজারেটর থাকার সম্ভাবনা আছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একটি সূত্র বলে, চিঠি পাওয়ার পর থেকেই কাজ শুরু করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। রেফ্রিজারেটর কেনা সম্ভব কি না, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ব্যাপারে তারা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইউনিসেফের সহায়তা চাইবে। আগামীকাল রোববার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে টিকা বিষয়ে একটি সভা আছে, সেই সভাতেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হতে পারে।

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২০, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25