শিরোনাম:
উত্তর টাঙ্গাইল সাংবাদিক ফোরামে পূর্ণাঙ্গ কমিট গঠন সুসজ্জিত গাড়িতে চেপে ‘রাজকীয়’ অবসরে গেলেন পুলিশ কনস্টেবল আকরাম বর্ণবাদী দুর্ব্যবহারের শিকার হয়েছিলেন ক্রিকেটার জাহিদ হিজলায় ভাইস চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেনের আরোগ্য কামনায় দোয়া মোনাজাত সরকার বিরোধী ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় আওয়ামী লীগ কর্মীদের প্রস্তুত থাকতে হবে এম এ সালাম। বোয়ালমারীতে কুমারনদীর মাটি ইট ভাটায় নেয়ার অভিযোগে ভাটা মালিককে ৫০হাজার টাকা জরিমানা সালথায় ইউসুফদিয়ায় আটদলীয় ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত নির্বাচনী প্রতিহিংসার জেরে মেহেরপুরে বেড়েই চলেছে ফসলের সাথে শত্রুতা। বাবার লাশ বাড়িতে রেখে এইচএসসি পরীক্ষা দিলেন মেরাজ লন্ডনের পাবলিক ট্রান্সপোর্টে মাস্ক না পরলে ৬৪০০ পাউণ্ড পর্যন্ত জরিমানা

তিস্তার হঠাৎ ভয়াবহ বন্যায় প্লাবিত হাজারো মানুষ, রেড অ্যালার্ট জারি।

নুর কাইয়ুম, স্টাফ রিপোর্টারঃ
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২০ অক্টোবর, ২০২১
তিস্তার হঠাৎ ভয়াবহ বন্যায় প্লাবিত হাজারো মানুষ

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

বুধবার ভোর ৬টা থেকে তিস্তা নদীর পানি নীলফামারী ডিমলার ডালিয়া তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিস্তার পানি হঠাৎ বেড়ে যাওয়ায় আশে পাশের মানুষের মধ্যে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। ভেঙ্গে গেছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ফ্লাট বাইপাস রাস্তাটি।

ভারি বর্ষণ, উজানের ঢল ও ভারতের গজলডোবার সব কয়টি গেট খুলে দেওয়ায় হু হু করে বাড়ছে তিস্তার পানি। ডিমলা উপজেলার ডালিয়া পয়েন্টে সকাল থেকেই তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে উপজেলার টেপাখড়িবাড়ী, গয়াবাড়ী, ছোটখাতা, বাইশ পুকুর, ছাতুনামা সহ তিস্তা নদীবেষ্টিত এলাকা তলিয়ে গেছে। এ কারণে রেড অ্যালার্ট জারি করে মানুষজনকে নিরাপদে সরে যাওয়ার জন্য ঘোষণা দিয়েছে তিস্তা অববাহিকায় পানি উন্নয়ন বোর্ড।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের পানি পরিমাপক নূরুল ইসলাম জানান, উজানের পাহাড়ি ঢলে মঙ্গলবার রাত থেকে তিস্তা নদীর পানি বাড়তে থাকে। বুধবার ভোর ৬টা থেকে তিস্তার পানি ৫৩ দশমিক ২০ সেন্টিমিটার অর্থাৎ বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার (বিপৎসীমা ৫২ দশমিক ৬০ সেন্টিমিটার) উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানির গতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে তিস্তা ব্যারেজের ৪৪টি জলকপাট খুলে রাখা হয়েছে।

ডিমলা উপজেলার পূর্বছাতনাই ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান জানান, এলাকার জিরো পয়েন্টে তিস্তার ডান তীর ও গ্রোয়েন বাঁধ হুমকির মুখে পড়েছে। বিশেষ করে গ্রোয়েন বাঁধটির উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। ওই গ্রোয়েনটি বিধ্বস্ত হলে ডান তীর বাঁধসহ এলাকার শত শত বাড়ি তিস্তা নদীতে ভেসে যাবে।

টেপাখড়িবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হক জানান, পরিস্থিতি খুব খারাপ। তিস্তা বাজার, তেলিরবাজার, দোলাপাড়া, চরখড়িবাড়ি এলাকা তলিয়ে গেছে। চরের ফসলের জমি সব পানির নিচে। ঘরবাড়ি ছেড়ে মানুষজন গবাদি পশুসহ নিরাপদে সরে গেছে।খালিশা চাপানী ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান সরকার বলেন, কার্তিক মাসের এমন হঠাৎ বন্যা এলাকাবাসীকে পথে বসিয়ে দিচ্ছে। এলাকার ছোটখাতা, বাইশপুকুর, সুপারীপাড়া গ্রাম এখন নদীতে পরিণত হয়েছে।

এদিকে, তিস্তার পানির বৃদ্ধির কারনে ভেঙ্গে গেছে বাঁধ। ভেঙে যাওয়ার কারণে তলিয়ে গেছে চাষাবাদকৃত বিভিন্ন ফসল ও হুমকিতে পড়েছে কয়েক গ্রামের বাড়িঘর ও রাস্তাঘাট।

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২০, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x