সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালের বেহাল দশা – জনবল সংকট সহ নেই অস্ত্রোপাচারের ব্যবস্থা

অনলাইন ডেস্ক:
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ৯ জুন, ২০২১

নাফিজ ফুয়াদ,জেলা প্রতিনিধি (নীলফামারী): ব্যবসায় খ্যাতি অর্জন করেছে নীলফামারীর সৈয়দপুর। প্রায় ৪ লাখ মানুষের বসবাস এই উপজেলায়। প্রথম শ্রেণীর পৌরসভার সাথে দেশের অষ্টম বাণ্যিজিক শহরে খ্যাতি অর্জন করলেও তেমনটা উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি এ পৌরসভায়। দুই একটি সড়ক ছাড়া প্রায় প্রতিটি সড়কই খানা খন্দে ভরা।

সরকারি ভাবে চিকিৎসা সেবায় ১০০ শয্যা হাসপাতালটি টানাপোরেনের মধ্য দিয়েই চলছে দীর্ঘদিন থেকে। সামান্য কয়জন চিকিৎসক আন্তরিক ভাবে চিকিৎসা সেবা দিলেও জনবল সংকটে নানান সমস্যার সম্মুখিন হচ্ছেন ডাক্তার সহ রোগিরা।

সৈয়দপুর উপজেলা সহ আশপাশ এলাকার প্রায় সাত লাখ মানুষের একমাত্র উন্নত চিকিৎসার ভরসা সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটি। উন্নত সেবা পাওয়ার ভরসায় মুমুর্ষ রোগিকেও পাঠানো হয় এ হাসপাতালে। এ কারনে ২০১৬ সালে ৫০ শয্যার এই হাসপাতালটিকে ১০০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। ২১ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মান করা হয় হাসপাতালের অপর একটি ভবন।

মেডিক্যাল অফিসারের বাসভবন ১টি সহ নার্সদের ভবন। কিন্তু জনবল রয়েই গেছে ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের মতই। ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে প্রায় ৩০ জন মেডিক্যাল অফিসার সহ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার থাকার কথা থাকলেও রয়েছে মাত্র ৮ জন। সরকার এ হাসপাতালে পর্যাপ্ত বরাদ্দ দিলেও রোগিদের চিকিৎসা সেবা মিলছে ৫০ শয্যা হাসপাতালের মতই।

হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের জন্য আধুনিক যন্ত্রপাতি সমৃদ্ধ অপারেশন থিয়েটর থাকলেও অভিজ্ঞ ডাক্তার ও নার্স না থাকায় জরুরি প্রয়োজনে অস্ত্রোপচার ব্যবস্থা বন্ধ রয়েছে। শুধু মাত্র মায়েদের বাচ্চা প্রস্রব ছাড়া মাইনর অপারেশনেও ভরসা রাখতে পারছেন না এ অঞ্চলের মানুষ। জনবল সংকটের কারনে করোনা ওয়ার্ড আর সাধারন ওয়ার্ডে একই স্টাফ দিয়ে চালানো হচ্ছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখাগেছে এ হাসপাতালে কদিন আগেও প্রত্যেকটি ফ্লোরে ছিল শত শত রোগি। যারা বিভিন্ন কারনে সৈয়দপুর সহ আসপাশ থেকে এসেছেন চিকিৎসা সেবা নেয়ার জন্য কিন্তু পর্যাপ্ত সেবা না পাওয়ায় ছুটে চলেছেন স্থানীয় ক্লিনিক বা রংপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে।

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ থেকে এ হাসপাতালে আসা রোগির স্বজন রোজিনা বেগম জানান গলায় ব্যাথা নিয়ে রোগিকে ভর্তি করেছিলাম। ৩ দিন ধরে অভিজ্ঞ কোন ডাক্তার পাওয়া যায়নি। এছাড়া কিডনি সহ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও সার্জন এর দেখা মিলেনি। তবে দালাল রয়েছে এ হাসপাতালে।
তারা রোগিদের পার্শ্ববর্তি ক্লিনিকে ভালো ডাক্তার সহ চিকিৎসা ভালো হওয়ার কথা বলে রোগিদের পরামর্শ দিচ্ছেন। সরকার ২০১৭ সাল থেকে এ হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা ভাল হওয়ার জন্য কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ দিলেও জনবল সংকটে মিলছেনা পর্যাপ্ত সেবা।

সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের আর.এম.ও ডাক্তার ওমেদুল হক বলেন জরুরি ভিত্তিতে জনবল বৃদ্ধি প্রয়োজন। অস্ত্রোপচারের সরঞ্জামের সমস্যা নেই, জনবল সংকটের কারনেই ইচ্ছে থাকার সত্বেও রোগিদের পর্যাপ্ত সেবা দিতে ব্যর্থ হচ্ছেন বলে জানান তিনি।

নীলফামারী জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার জাহাঙ্গীর কবির জানান জনবল সংকটের ব্যাপারে মন্ত্রনালয়ে চাহিদা পত্র দেয়া হয়েছে। শিগগির একটা ব্যাবস্থা হবে বলে আশা করছেন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২০, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x