শিরোনাম:
হাটহাজারীতে মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে স্কুলছাত্রীর গলায় ফাঁস দুর্বৃত্তদের হাতে কলেজ ছাত্র নিহত চবিতে ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে আভ্যন্তরীণ আইন-শৃংখলা নিয়ন্ত্রণ বিষয়ে সভা আজ নিরাপদ সড়ক দিবস,নিরাপদ সড়ক: প্রেক্ষিত বাংলাদেশ রাণীশংকৈলে পুকুরে ডুবে ০৪ বছরের শিশু নিহত সুনামগঞ্জ পৌরসভার ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত জোর করে বিয়ে দেওয়ায় ঠাকুরগাঁওয়ে চেয়ারম্যানসহ গ্রেপ্তার-০৯ পাটগ্রাম দহগ্রামে বন্যায় দিশেহারা হাজারো মানুষ নলছিটিতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার্থে বিশেষ আইনশৃঙ্খলা সভা হিজলার মেঘনা থেকে দুই দিন পর কোস্ট গার্ড সদস্যের মরদেহ উদ্ধার।

ধানের সাথে এ কেমন শত্রুতা,কাঁদছে অসহায় বর্গাচাষী তারানু ও মিঠন

মো নাহিদ হাসান, নিয়ামতপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২১

কাঁদছেন নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার হাজিনগর ইউনিয়নের পাতইল গ্রামের অসহায় গরিব বর্গা চাষী ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী শ্রী বিরসা সরদারের ছেলে তারানু সরদার ও কুশমইল গ্রামের মৃত- মজিবুর রহমানের ছেলে মিঠন। কাঁদার কারণ হচ্ছে তাদের একমাত্র সম্বল কষ্টে রোপনকৃত সাড়ে ৫ বিঘা জমির আমন ধান প্রতিপক্ষরা তাদের সর্বশান্ত করতে কিটনাশক প্রয়োগ করে ঝলসিয়ে দিয়েছে। প্রতিপক্ষরা জোরেসোরে বিভিন্ন জায়গায় বলে বেড়াতেন ধান রোপন করলেও ঘরে তুলতে পারবে না।
এ বিষয়ে জমির মালিক মোসাঃ উম্মে কুলসুমের স্বামী পোরশা উপজেলার নোনাহার গ্রামের মোঃ সামসুল হক শাহ বিচার চেয়ে থানায় লিখিত আবেদন দায়ের করেছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, হাজিনগর ইউনিয়নের পাতইল মৌজার ১৪ জেএল নম্বরের খতিয়ান নং ২৯, দাগ নং ৩৭৬, পরিমান ১ একর ৮৭ শতাংশ সম্পত্তি পোরশা উপজেলার নোনাহার গ্রামের সামসুল হক শাহ্্ এর স্ত্রী উম্মে কুলসুম ওয়ারিশ সূত্রে মার সম্পত্তি প্রায় ২০ বছর যাবত ভোগ দখল করে আসছেন। তাদের বর্গা চাষী পাতইল গ্রামের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী তারানু সরদার খেয়ে না খেয়ে সাড়ে ৩ বিঘা জমিতে এবং কুশমইল গ্রামের মিঠন ২ বিঘা জমিতে আমন ধান চাষ করেছিলেন। গত ১০ অক্টোবর রাত আনুমানিক ১২টার দিকে অন্ধকারে ঘাস নিধনের কীটনাশক ছিটিয়ে সাড়ে ৫ বিঘার জমির আমন ধান সম্পূর্ন পুড়ে ফেলে।
এ বিষয়ে বর্গাচাষী তারানু সরদার বলেন, আমি খেয়ে না খেয়ে অনেক কষ্টে সাড়ে ৩ বিঘা জমিতে আমন ধান চাষ করি। পানি সেচ, সার-বিষ সব দেওয়া শেষ হয়েছে। ধান বের হতে শুরু করেছে। ধান গাছও খুব সুন্দর হয়েছিল। এক মাসের মধ্যে আমার ধান আমার ঘরে উঠতো। অথচ শত্রুতা করে রাতের অন্ধকারে ঘাস মারা বিষ দিয়ে আমার ধান গাছ পুড়ে দিয়ে আমার স্বপ্ন আমার ভবিষ্যৎ সম্পূর্ন নষ্ট করে দেয়। কাটনা গ্রামের আলহাজ্ব গাজির উদ্দিনের ছেলে মোদাচ্ছের, পাতইল গ্রামের মোসলেমের ছেলে জাহাঙ্গীর ও হুমায়ন ইতি পূর্বে আমাকে বিভিন্ন জায়গায় হুমকি দিয়ে আসছিল ধান রোপন করলেও ঘরে তুলতে পারবো না। আমার ধারণা তারাই এ কাজ করেছে।
তারানু সরদারের বাবা বিরসা সরদার বলেন, আমরা অনেক দিন যাবত এ জমি বর্গা চাষ করে আসছি। জাহাঙ্গীর ও হুমায়নরা এর আগে এ জমি বর্গা চাষ করতো। এখন তারা না পেয়ে এবং জমির প্রতিপক্ষ অংশীদারদের কথা মত এ কাজ করেছে।
আরেক বর্গা চাষী মিঠন বলেন, আমিও অনেক

এই বিভাগের আরও খবর
কপিরাইট ©২০০০-২০২০, WsbNews24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Desing & Developed BY ServerNeed.Com
themesbazarwsbnews25
x